১৪ এপ্রিল, ২০২৪
১ বৈশাখ, ১৪৩১

ময়মনসিংহ-৩ আসনে জয়ী নিলুফার আনজুম

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ব্যালট ছিনতাইয়ের ঘটনায় স্থগিত হওয়া ময়মনসিংহ-৩ গৌরীপুর আসনে বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন নৌকার প্রার্থী অ্যাডভোকেট নিলুফার আনজুম পপি। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিলের স্ত্রী।

স্থগিত একটি কেন্দ্রে শনিবার সারাদিন ভোট গ্রহণের পর গণনা শেষে পপিকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

নৌকা প্রতীকে নিলুফার আনজুম পপি পেয়েছেন ৫৪ হাজার ৪৯১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী সোমনাথ সাহা ভোট পেয়েছেন ৫২ হাজার ৫৬৬ টি। পপি বিজয়ী হয়েছে এক হাজার ৯২৫ভোটে।

গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন ভালুকাপুর উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে দুই দফা হামলা করে দুর্বৃত্তরা। ভোটের বাক্স ভেঙে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগও আসে।

এসব ঘটনার মধ্যে ময়মনসিংহ-৩ আসনের ফল ঘোষণা স্থগিত করা হয়। পরে ৮ জানুয়ারি প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল জানান, ১৩ জানুয়ারি ভালুকাপুর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

গৌরীপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত ময়মনসিংহ-৩ আসনে মোট ভোট কেন্দ্র ৯২টি, এরমধ্যে ৯১ কেন্দ্রের ফল ঘোষণা করা হয় সাত জানুয়ারি।

ওইদিন ৫৩ হাজার ১৯৬ ভোট পেয়ে সোমনাথ সাহার থেকে ৯৮৫ ভোটে এগিয়ে যান গৌরীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট নিলফার আনজুম পপি।

শনিবার সকাল আটটা থেকে ভালুকাপুর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়, চলে বিকেল চারটা পর্যন্ত। এরপর শুরু হয় গণনা। পুনরায় এই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ উপলক্ষে ব্যাপক নিরাপত্তা প্রস্তুতি নেয়া হয়। সকাল থেকেই মহড়া দিতে থাকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা।

সারাদিন ভোট চলে নির্বিঘ্নে। ভোটের সময় দুই প্রার্থীও যান ওই কেন্দ্রে। ভোটার উপস্থিতি হার ৫৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

তিন হাজার ৩২ জন ভোটারের মধ্যে এদিন ভোট দিয়েছেন এক হাজার ৬৬১ জন। এরমধ্যে নৌকা পেয়েছে এক হাজার ২৯৫ ভোট, আর ট্রাক পেয়েছে ৩৫৫ ভোট।

প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়া নিলুফার আনজুম পপি মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান। তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসিম ছিলেন গৌরীপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রতিষ্ঠাকালীন কমান্ডার। পপির দাদা ছাবেদ হোসেন ১৯৭১ সালের ২১ আগস্ট হানাদার বাহিনীর গণহত্যায় শহিদ হন।

Scroll to Top