১৮ জুন, ২০২৪
৪ আষাঢ়, ১৪৩১
Mirror Times BD

তীরে এসে তরী ডুবলো বাংলাদেশের

মিরর স্পোর্টস : শেষ ২ বলে লাগে ৬ রান। কেশভ মহারাজের নিচু ফুল টস বল গায়ের জোর দিয়ে সোজা মারলেন মাহমুদউল্লাহ। হয়তো জয় উৎসব করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। কিন্তু যা ঘটে গেলো, তার চোখও যেন বিশ্বাস করতে পারলো না। দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক এইডেন মারক্রাম সতর্ক ছিলেন। বল আসতে দেখে বাঁ দিকে সরে গিয়ে লাফ দিলেন। তার হাত ফসকালেই মাহমুদউল্লাহ বিজয়ের আনন্দে মাতবেন। কিন্তু হলো না। তার হাতে বল আটকে গেলো। মাহমুদউল্লাহ হয়তো হাত দিয়ে বলতে চাচ্ছিলেন আরেকটু উপরে উঠলেই তো হতো। তাতেই তীরে এসে তরী ডুবলো বাংলাদেশের। শেষ বলে ৬ হলেই জেতা যায়, নতুন ব্যাটার তানজিম হাসান সাকিব পারেননি। বাংলাদেশ থেমেছে ১০৯ রানে। লক্ষ্য ছিল মাত্র ১১৪ রানের। চার রানে হেরে বিষাদে ভাসলো নাজমুল হোসেন শান্তর দল।

শেষ ওভারে লাগে ১১ রান

শেষ ওভারে ১১ রানের দরকার ছিল বাংলাদেশের। প্রথম বল ওয়াইড দেন কেশভ মহারাজ। তারপর মাহমুদউল্লাহ সিঙ্গেল নেন। দ্বিতীয় বলে দুটি রান নেন জাকের আলী। তৃতীয় বলে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসে জোরালো শট খেলতে গিয়ে এইডেন মারক্রামের ক্যাচ হন তিনি। ৯ বলে ৮ রান করেন জাকের।

চতুর্থ বলে রিশাদ হোসেনের বিরুদ্ধে এলবিডব্লিউর আবেদন করে প্রত্যাখ্যাত হলে রিভিউ নেয় প্রোটিয়ারা। কিন্তু সফল হয়নি তারা। লেগ বাই থেকে একটি রান আসে। ২ বলে লাগে ৬ রান। পঞ্চম বলে মাহমুদউল্লাহ ফুল টসে শক্তিশালী শটে ছক্কা মারতে চেয়েছিলেন, কিন্তু হতাশ হতে হয় তাকে। বাউন্ডারির কাছে মারক্রামের দুর্দান্ত ক্যাচ হন। ২৭ বলে ২০ রান করেন তিনি। শেষ বলে তানজিম হাসান সাকিব পারেননি ছক্কা মারতে। ৭ উইকেটে ১০৯ রানে থামে বাংলাদেশ। চার রানে জিতে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

শেষ ওভারে ১১ রান লাগবে বাংলাদেশের

দলকে অস্বস্তিতে রেখে বিদায় নিলেন তাওহীদ হৃদয়। ১৮তম ওভারে কাগিসো রাবাদার বলে এলবিডব্লিউ হন তিনি।  দুটি করে চার ও ছয়ে ৩৪ বলে ৩৭ রান করেন হৃদয়। মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে তার জুটি ছিল ৪৪ রানের। ১৯তম ওভারে বাংলাদেশের স্কোর ১০০ হয়। শেষ ওভারে ১১ রান দরকার বাংলাদেশের।

রিভিউ নিয়ে টিকে থাকলেন মাহমুদউল্লাহ

২৯ থেকে ৫০ রানের মধ্যে তিন উইকেট হারানো বাংলাদেশকে পথ দেখাচ্ছেন মাহমুদউল্লাহ ও তাওহীদ হৃদয়ের জুটি। ১১তম ওভারের চতুর্থ বলে মার্কো জানসেনের হাত ফসকে জীবন পেয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। ১৭তম ওভারে আরেকবার বেঁচে যান এই ব্যাটার। ওটনিল বার্টম্যানের বলে এলবিডব্লিউর আবেদনে আম্পায়ার আঙুল তুলে দেন। রিভিউ নিয়ে টিকে গেলেন মাহমুদউল্লাহ। ১৭ ওভারে ৪ উইকেটে ৯৪ রান বাংলাদেশের।

নর্কিয়ের দ্বিতীয় শিকার শান্ত

দলীয় স্কোর ৫০ রান হতেই নাজমুল হোসেন শান্ত বিদায় নিলেন। দশম ওভারের পঞ্চম বলে আনরিখ নর্কিয়ের শিকার হন বাংলাদেশের অধিনায়ক। প্রোটিয়া পেসারের শর্ট বলে ১৪ রানে এইডেন মারক্রামের সহজ ক্যাচ হন তিনি। ২৩ বল খেলে একটি ছয় মারেন শান্ত। ১০ ওভার শেষে ৪ উইকেটে ৫০ রান বাংলাদেশের।

৩ রানে আউট সাকিব

লিটন দাস প্যাভিলিয়নে ফেরার পর সাকিব আল হাসান ২২ গজে নামেন। কিন্তু ৪ বলের বেশি খেলতে পারেননি, করেছেন মাত্র ৩ রান। আনরিখ নর্কিয়ের বলে এইডেন মারক্রামের সহজ ক্যাচ হলেন বাঁহাতি ব্যাটার। ৭.৪ ওভারে ৩৭ রানে তিন উইকেট পড়লো বাংলাদেশের।

পাওয়ার প্লের পর লিটন প্যাভিলিয়নে

কেশভ মহারাজ বল হাতে নিয়েই সফল হলেন। ২০ রানের জুটি ভেঙে দিলেন তিনি লিটন দাসকে ডেভিড মিলারের ক্যাচ বানিয়ে। পাওয়ার প্লে শেষ হওয়ার পর প্রথম বলেই পড়লো দ্বিতীয় উইকেট। ৯ রান করেন বাংলাদেশের ব্যাটার। ৬.১ ওভারে ২৯ রানে ২ উইকেট পড়লো তাদের।

শান্ত-লিটনের জুটিতে স্বস্তিতে বাংলাদেশ

নাজমুল হোসেন শান্ত ও লিটন দাসের জুটিতে বাংলাদেশ স্বস্তিতে আছে। চতুর্থ ওভারে ওটনিল বার্টম্যানের প্রথম বলে ১৮ মিটার উঁচু দিয়ে লম্বা এক ছ্ক্কা মেরে গ্যালারি মাতান শান্ত। লিটনও পরের ওভারে চার মেরেছেন। পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ২৯ রান।

টানা দুটি চার মেরে রাবাদার শিকার তানজিদ

তানজিদ হাসান তামিম ও নাজমুল হোসেন শান্তর ওপেনিং জুটিতে দারুণ শুরু হয়েছিল বাংলাদেশের। প্রথম ওভারে এক রান নিলেও তানজিদ দ্বিতীয় ওভারে কাগিসো রাবাদাকে টানা দুটি চার মারেন। শেষ বলে কট বিহােইন্ড হন বাংলাদেশি ওপেনার। ২ ওভার শেষে ১ উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৯ রান।

দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাতে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১১৪ রান

দুর্দান্ত বোলিং নৈপুণ্য দেখালো বাংলাদেশ। নিউ ইয়র্কের দুর্বোধ্য পিচে এবার ব্যাটারদের পরীক্ষা। দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৬ উইকেটে ১১৩ রানে আটকে দিয়েছে তারা। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় জয় পেতে বাংলাদেশকে করতে হবে ১১৪ রান।

নাসাউ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে তানজিম হাসান সাকিবের বোলিং তোপে পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা। ২৩ রানে চার উইকেটের তিনটিই তার শিকার। এরপর আইনরিখ ক্লাসেন ও ডেভিড মিলারের ৭৯ রানের জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় প্রোটিয়ারা। সেট হওয়া দুই ব্যাটারকে ডেথ ওভারে ফেরায় বাংলাদেশ। তারপর শেষ ওভারে মোস্তাফিজুর রহমানের আঁটসাঁট বোলিংয়ে চার রানের বেশি হয়নি। দলটির পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৬ রান করেন ক্লাসেন। ২৯ রান করেন মিলার। এছাড়া কেবল কুইন্টন ডি কক (১৮) দুই অঙ্কের ঘরে রান করেন।

তানজিম চার ওভারে ১৮ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন। মোস্তাফিজও সমান রান দিলেও ছিলেন উইকেটশূন্য। তাসকিন আহমেদ ২ উইকেট দেন ১৯ রান দিয়ে। আগের ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় রিশাদ হোসেন ছিলেন খরুচে। ৪ ওভারে ৩২ রান দেন তিনি। মাহমুদউল্লাহ তিন ওভার করে দিয়েছেন ১৭ রান।

মিলারের স্টাম্প ভাঙলেন রিশাদ

আইনরিখ ক্লাসেনের পর আরেক সেট ব্যাটার ডেভিড মিলারের পতন হলো। রিশাদ হোসেনের কাছে বোল্ড হন এই ব্যাটার। ১৮.২ ওভারে ১০৬ রানে ৬ উইকেট পড়লো তাদের। মিলার ৩৮ বলে একটি করে চার ও ছয়ে ২৯ রান করেন।

মিলার-ক্লাসেনের শক্ত জুটি ভাঙলেন তাসকিন

নেদারল্যান্ডস ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার জয়ের নায়ক ডেভিড মিলার হাল ধরেছেন। বাংলাদেশের সামনে তার সঙ্গে প্রতিরোধ গড়েছেন আইনরিখ ক্লাসেন। ২৩ রানে চার উইকেট হারানোর পর এই দুজনে মিলে শক্ত প্রতিরোধ গড়েন। অবশেষে ক্লাসেনকে বোল্ড করে তাদের আলাদা করলেন তাসকিন আহমেদ। ১৮তম ওভারে বোল্ড হন দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটার। ৭৯ রানের জুটি গড়ার পথে ক্লাসেন করেছিলেন ৪৬ রান। ৪৪ বলে ২ চার ও ৩ ছয়ে এই রান করেন তিনি। ১৭.৩ ওভারে ১০২ রানে প্রোটিয়াদের পঞ্চম উইকেট পড়লো।

পাওয়ার প্লেতে অবিশ্বাস্য বাংলাদেশ

পাওয়ার প্লের প্রথম ৬ ওভারে বাংলাদেশ দেখালো দাপট। দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং অর্ডারে ভাঙচুর চালালো তারা। তানজিম হাসান সাকিব এই সময়ে তিন ওভার বল করে ১৩ রান দিয়ে তিন উইকেট নিয়েছেন। নিজের প্রতি ওভারে একটি করে উইকেট নেন তিনি। মাঝে তাসকিন আহমেদ ফেরান এইডেন মারক্রামকে। ১১ থেকে ২৩ রানে চার উইকেট পড়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার। পাওয়ার প্লেতে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ২৫ রান করেছে তারা।

এনিয়ে বিশ্বকাপে চতুর্থবার পাওয়ার প্লেতে চার উইকেট পেলো বাংলাদেশ। ২০২১ সালে পাপুয়া নিউগিনি, পরের বছরের ইভেন্টে নেদারল্যান্ডস ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এই কীর্তি গড়ে তারা।

তানজিমের তৃতীয় উইকেট

তানজিম হাসান সাকিব তার তৃতীয় বলে আরেকটি উইকেট পেলেন। পঞ্চম ওভারে তার তৃতীয় শিকার ট্রিস্টান স্টাবস। দক্ষিণ আফ্রিকা ব্যাটার ৫ বলে রানের খাতা খুলতে পারেননি। শর্ট কাভারে সাকিব আল হাসানের সহজ ক্যাচ হন স্টাবস। ৪.২ ওভারে ২৩ রানে ৪ উইকেট নেই দক্ষিণ আফ্রিকার। ৩ ওভার শেষে ১৩ রানে তিন উইকেট তানজিমের।

মারক্রামকে বোল্ড করলেন তাসকিন

এইডেন মারক্রামও প্যাভিলিয়নে ফিরলেন। তাসকিন আহমেদ ইনিংসের চতুর্থ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়কের স্টাম্প ভাঙেন। ৮ বলে ৪ রান করেন তিনি। ৩.৫ ওভারে ২৩ রানে তিন উইকেট নেই দক্ষিণ আফ্রিকার।

ডি ককের অফ স্টাম্প ভাঙলেন তানজিম

নিজের দ্বিতীয় ওভারে বল হাতে নিয়ে আরেকবার দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং অর্ডারে আঘাত করলেন তানজিম হাসান সাকিব। আগের ওভারে তাকে টানা ছয়-চার মারা কুইন্টন ডি ককের অফস্টাম্প ভাঙেন বাংলাদেশি পেসার। তৃতীয় বলে পুল করতে গিয়ে প্রোটিয়া ব্যাটার বলে ব্যাট ছোঁয়াতে পারেননি। ১১ বলে ১ চার ও ২ ছয়ে ১৮ রান করেন ডি কক। ১৯ রানে দ্বিতীয় উইকেট পেলো বাংলাদেশ।

১১ রান দিয়ে শেষ বলে তানজিমের আঘাত

প্রথম ওভারে কুইন্টন ডি ককের কাছে টানা ছয়-চার হজম করেন তানজিম হাসান সাকিব। শেষ বলে স্ট্রাইকে আসেন রিজা হেনড্রিক্স। বাংলাদেশি বোলারের মুখোমুখি হয়ে নিজের প্রথম বলেই আউট হন তিনি। তানজিমের এলবিডব্লিউর আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। ১১ রানে ১ উইকেট পড়লো দক্ষিণ আফ্রিকার।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ, বাদ সৌম্য

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ টসে হেরেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

প্রোটিয়া অধিনায়ক এইডেন মারক্রাম জানান, ব্যবহৃত উইকেটের কারণে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। তার মতে, এই উইকেটে রান তাড়া করা কঠিন হবে। আগের ম্যাচগুলোও তাই বলছে। পরে ব্যাট করতে নামা দলগুলো বেশিরভাগ সময় ভুগেছে।

শ্রীলঙ্কা ও নেদারল্যান্ডসকে হারানো দক্ষিণ আফ্রিকার একাদশে কোনও পরিবর্তন নেই। বাংলাদেশের একাদশ থেকে বাদ পড়েছেন সৌম্য সরকার, দলে ঢুকেছেন জাকের আলী। গত ছয় টি-টোয়েন্টিতে সৌম্যর সর্বোচ্চ রান ছিল ৪৩। তিনটিতে দুই ডিজিটের রান ছুঁতে পারেননি, যার মধ্যে দুটিতে মারেন ডাক।

দক্ষিণ আফ্রিকা: কুইন্টন ডি কক (উইকেটকিপার), রিজা হেনড্রিক্স, এইডেন মারক্রাম (অধিনায়ক), আইনরিখ ক্লাসেন, ডেভিড মিলার, ট্রিস্টান স্টাবস, মার্কো জানসেন, কেশব মহারাজ, কাগিসো রাবাদা, আনরিখ নর্কিয়ে, ওটনিল বার্টম্যান।

বাংলাদেশ: তানজিদ হাসান তামিম, জাকের আলী, লিটন দাস (উইকেটকিপার), নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), তাওহীদ হৃদয়, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ, রিশাদ হোসেন, তানজিম হাসান সাকিব, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান।

দক্ষিণ আফ্রিকাকে ছাপিয়ে বাংলাদেশের ভাবনায় নিউইয়র্কের উইকেট!

নিউইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেট নিয়ে তীব্র সমালোচনা হচ্ছে। সাধারণত আইসিসি ইভেন্টে স্পোর্টিং উইকেট হয়ে থাকে। সেখানে ব্যাটারদের পাশাপাশি সমান সুবিধা থাকে বোলারদেরও। কিন্তু নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেটে এমন কিছু পাওয়া যাচ্ছে না। গতকাল ভারত ও পাকিস্তানের লো স্কোরিং ম্যাচ আবারও চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে উইকেটের সার্বিক চরিত্র। এই মাঠেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আজ রাত সাড়ে ৮টায় মুখোমুখি হবে নাজমুল হোসেন শান্ত দল। যেখানে প্রতিপক্ষের চেয়েও বাংলাদেশ বেশি ভাবছে নতুন এই স্টেডিয়ামের উইকেট নিয়ে। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে নাগরিক টেলিভিশন।

⠀শেয়ার করুন

loader-image
Dinājpur, BD
জুন ১৮, ২০২৪
temperature icon 27°C
heavy intensity rain
Humidity 93 %
Pressure 999 mb
Wind 7 mph
Wind Gust Wind Gust: 12 mph
Clouds Clouds: 100%
Visibility Visibility: 0 km
Sunrise Sunrise: 05:14
Sunset Sunset: 18:58

⠀আরও দেখুন

Scroll to Top