১৮ এপ্রিল, ২০২৪
৫ বৈশাখ, ১৪৩১

প্রথমবার ট্রাম্পকে হারালেন নিকি হ্যালি

মিরর ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে রিপাবলিকান পার্টির প্রাইমারি ভোটে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারিয়েছেন নিকি হ্যালি। ২০২৪ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী বাছাইয়ে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নিকি হ্যালি প্রথমবারের মতো জয় পেলেন। খবর বিবিসির।

এর আগে নিকি হ্যালি তার নিজের অঙ্গরাজ্য সাউথ ক্যারোলিনাতেও ট্রাম্পের কাছে হেরেছেন। তবে ওয়াশিংটন ডিসিতে জয়ী হয়ে সবাইকে হতবাক করে দিয়েছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে নিকি হ্যালিই প্রথম নারী যিনি রিপাবলিকান পার্টির কোনো প্রাইমারিতে জয়ী হলেন।

জাতিসংঘে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি রিপাবলিকান পার্টির প্রাইমারিতে ৬২ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। অপরদিকে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পেয়েছেন ৩৩ দশমিক ২ শতাংশ ভোট।

সপ্তাহ খানেক আগেই তাকে প্রায় সাড়ে ৩৫ কোটি ডলার জরিমানা করেছেন দেশটির একজন বিচারক। তবে সুদসহ এই অংক দাঁড়াতে পারে ৪৫ কোটি ডলারে। সম্পত্তির মূল্য সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দেওয়ার অভিযোগে নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের তহবিলে এই জরিমানা দিতে হবে তাকে।

নিউইয়র্কের কোনো ব্যাংক থেকে পরবর্তী তিন বছরের জন্য ঋণ নেওয়ার বিষয়েও তার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন বিচারক আর্থার এনগোরন। পাশাপাশি ট্রাম্প তার কোম্পানির পরিচালকও থাকতে পারবেন না বলে আদেশ দেওয়া হয়েছে।

দুই বছরের জন্য তাদের নিউইয়র্কে ব্যবসা করার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এই জরিমানা বাদেও একটি মানহানির মামলায় লেখক ই জন ক্যারলকে প্রায় সাড়ে আট কোটি ডলার জরিমানা দিতে হবে ট্রাম্পকে। এ পর্যন্ত মোট পাঁচটি মামলার মুখোমুখি হতে হয়েছে তাকে।

এর মধ্যে সরকারি গোপন নথি নিজের কাছে রাখা এবং ক্যাপিটল হিলে দাঙ্গায় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা চলছে। ডোনাল্ড ট্রাম্পের আইনি ঝামেলা যতই বাড়তে থাকুক না কেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জন্য রিপাবলিকান প্রার্থীদের মধ্যে তার জনপ্রিয়তা একটুও কমেনি।

যুক্তরাষ্ট্রে ইপসসের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা ক্লিফোর্ড ইয়ং মনে করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার সমর্থকদের মধ্যে যে একাত্মতাবোধ তা ভাঙা কঠিন হবে। রিপাবলিকান ভোটারদের ৪০ থেকে ৪৫ ভাগই ট্রাম্প সমর্থক এবং তারা ট্রাম্পের চোখ দিয়েই দুনিয়া দেখে। তারা বিশ্বাস করে ট্রাম্পের প্রতি অন্যায় করা হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

এ বছরের শুরু থেকেই ট্রাম্পকে একদিকে প্রচারাভিযানের সময়সূচি এবং আরেকদিকে আদালতে হাজিরা দেওয়া- দুটি বিষয়ই সামাল দিতে হচ্ছে। দোষী সাব্যস্ত হলে বা দণ্ডিত হলেও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে না দাঁড়ানোর ঘোষণা আগেই দিয়ে রেখেছেন এই রিপাবলিকান।

জরিপে দেখা যাচ্ছে, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে জনপ্রিয়তায় বর্তমান প্রেসিডেন্টকে ছাপিয়ে যেতে শুরু করেন ট্রাম্প। এছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে বাইডেনের ফিটনেস নিয়ে আলোচনা অনেক দূর গড়িয়েছে। সাইকেল চালাতে গিয়ে পড়ে যাওয়া কিংবা বিমানে উঠতে গিয়ে হোঁচট খাওয়ার ঘটনাগুলো তার শারীরিক সক্ষমতার ব্যাপারে খুব একটা ভালো ধারণা দেয় না। সবকিছু মিলিয়ে আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এখন পর্যন্ত ট্রাম্পই সবচেয়ে জনপ্রিয় সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

Scroll to Top