২৩ মে, ২০২৪
৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১
Mirror Times BD

খারকিভের কাছে রুশ সেনাবাহিনীর ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ অগ্রগতি

মিরর ডেস্ক : ইউক্রেনের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় খারকিভ অঞ্চলে রাশিয়ার সেনাবাহিনী কৌশলগতভাবে তাৎপর্যপূর্ণ অগ্রগতি করেছে। এই অঞ্চলে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর প্রতিরক্ষা দুর্বল। শুক্রবার খারকিভ সীমান্তে রাশিয়া নতুন স্থল হামলা শুরুর পর এই অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। ওয়াশিংটনভিত্তিক ইনস্টিটিউট অব স্টাডি অব ওয়ার (আইএসডব্লিউ)-এর এক সাম্প্রতিক পর্যালোচনায় এই পরিস্থিতির কথা উঠে এসেছে। মার্কিন সাময়িকী নিউজউইক এ খবর জানিয়েছে।

শনিবার আইএসডব্লিউ নিজেদের পর্যালোচনায় বলেছে, খারকিভের উত্তরাঞ্চলে ইউক্রেন-রাশিয়া সীমান্তের কাছে সীমিত আকারের আক্রমণ অভিযান পরিচালনা করছে রুশ সেনাবাহিনী। ইউক্রেনীয় প্রতিরক্ষা দুর্বল থাকা অঞ্চলগুলোতে কৌশলগত অগ্রগতি পাচ্ছে তারা।

শুক্রবার ইউক্রেনীয় নেতা ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছিলেন, ইউক্রেনীয় সেনাদের বিরুদ্ধে অভিযান সম্প্রসারিত করতে চেষ্টা করছে রাশিয়া। ইউক্রেন দ্রুত অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে।

২০২২ সালে সর্বাত্মক আক্রমণের শুরুতে রাশিয়া উত্তর-পূর্ব ইউক্রেনের বিশাল অংশ দখল করেছিল। এর মধ্যে খারকিভ অঞ্চলের একাংশও ছিল। কিন্তু ওই বছরেই ইউক্রেনের পাল্টা আক্রমণে খারকিভসহ বেশ কিছু অঞ্চল পুনরুদ্ধার করে রুশবাহিনী পিছু হটিয়ে দেওয়া হয়।

শনিবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, সীমান্তে বেশ কয়েকটি গ্রাম দখল করেছে রুশ সেনারা। এসব গ্রামের মধ্যে রয়েছে বরিসিভকা, ওহিরস্তেভ ও প্লেটেনিভকা।

ইউক্রেনীয় সেনাপ্রধান কর্নেল জেনারেল ওলেক্সান্ডার সিরস্কি রবিবার বলেছেন, আমাদের ভূখণ্ডের গভীরে প্রবেশের লক্ষ্য নিয়ে শত্রু সেনারা বিভিন্ন দিক থেকে আমাদের সেনাবাহিনীর ওপর হামলা করছে। প্রতিরক্ষা বাহিনী তুমুল রক্ষণাত্মক যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে।

শনিবার আইএসডব্লিউ বলেছে, খারকিভ শহরের অবস্থান সীমান্তের কাছাকাছি হওয়ার কারণে রাশিয়ার সীমিত কৌশলগত অগ্রগতির তাৎপর্য বেড়ে গেছে। অবশ্য রুশ সেনারা এখনও তেমন অগ্রগতি অর্জন করেনি যাতে খারকিভ শহর নিয়মিত কামানের গোলাবর্ষণের হুমকিতে থাকবে।

খারকিভের আঞ্চলিক কর্মকর্তারা বলেছেন, সীমান্তের ভভচানস্ক শহরসহ বিভিন্ন স্থানের রাশিয়ার গোলাবর্ষণ ও হামলা তীব্র হয়েছে। খারকিভ হলো ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। সীমান্তবর্তী অঞ্চলটি গত কয়েক সপ্তাহ ধরে নিয়মিত রুশ হামলার শিকার হচ্ছে।

শুক্রবার ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ভভচানস্ক গ্রামে রাশিয়া বিমান হামলা চালিয়েছে এবং সাঁজোয়া যান নিয়ে ইউক্রেনীয় প্রতিরক্ষা ভেদ করার চেষ্টা করেছে। সেখানে রিজার্ভ সেনা পাঠানো হয়েছে।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় ডনেস্কে মনোযোগী ছিল রাশিয়া। যে চারটি ইউক্রেনীয় অঞ্চলকে নিজেদের বলে ঘোষণা করেছে সেগুলোর একটি হলো ডনেস্ক। যদিও পুরো অঞ্চলটি তারা দখলে নিতে পারেনি।

ফেব্রুয়ারিতে কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ ইউক্রেনীয় শহর আভদিভকা দখল করেছিল রুশ সেনাবাহিনী। এরপর থেকে তারা আভদিভকার পশ্চিম দিকে অগ্রসর হচ্ছে। একই সঙ্গে প্রায় এক বছর আগে দখল করা বাখমুতের পশ্চিম দিকেও এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে।

⠀শেয়ার করুন

⠀আরও দেখুন

Scroll to Top